হয়ে যাক, অদৃশ্য মানব হওয়ার যাত্রা শুরু!

0

সিনথিয়া করীম-

পৃথিবীর সকল দৃশ্যমান বস্তু দেখতে আমরা কী করে সক্ষম হই তা কমবেশি সবারই জানা। প্রাচীনকালে মনে করা হত, আমরা যেই বস্তুকে দেখতে চাই সেই বস্তুর উপর আমাদের চোখ থেকে আলো পড়লেই সেই বস্তুটি আমাদের চোখে দৃশ্যমান হয়। তবে বিজ্ঞানের ভাষায় ব্যাপারটি ঠিক ঊল্টো। কোন বস্তু থেকে আলো প্রতিফলিত হয়ে আমাদের চোখে এসে পড়লেই তা আমরা দেখতে পাই।

পৃথিবীর সকল দৃশ্যমান বস্তু থেকেই আলো প্রতিফলিত হয় বলেই তা আমাদের চোখে ধরা পড়ে।  যদি কোন বস্তু থেকে আমাদের চোখে আলো এসে না পৌঁছায়, তবে আমরা তা দেখতে অসমর্থ হবো। একটি বিখ্যাত ছবি দ্য ইনভিসিবল বয়’তে আমরা দেখতে পাই একটি ছেলের অদৃশ্য হওয়ার গল্প। সে নানা অলৌকিক ক্ষমতা প্রয়োগ করে হারিয়ে যায় এবং প্রয়োজন মতো আবার ফিরে আসে।

আমাদের দৈনন্দিন জীবনে এরূপ ঘটনাকে আমরা নিঃসন্দেহে ভৌতিক ঘটনা বলে চালিয়ে দিতে একটুও দ্বিধা বোধ করবোনা। বরং কেঊ কেঊ এরূপ ঘটনাকে মস্তিষ্ক বিকৃতি বলতেও পিছু হটবেন না। তবে আসলেই কী সাধারণ মানুষের জন্য অদৃশ্য হওয়া সম্ভব?

বিজ্ঞানের জাদুতে সবকিছুই সম্ভব। বিজ্ঞানসম্মত ভাবেই যেকোন দৃশ্যমান বস্তুকে অদৃশ্য করে ফেলা সম্ভব। যেকোন বস্তুর চারপাশে যদি এমন একটি ইলেক্ট্রনিক বেষ্টনী তৈরি করা যায়, যে যার মাধ্যমে কোন আলোর প্রবেশ ও নির্গমন অসম্ভব, তাহলে নিঃসন্দেহে একটি বস্তুকে অদৃশ্য করা সম্ভব।

এমন বাঁধায় বাঁধাপ্রাপ্ত হয়ে আলোটি বস্তুটির পাশ কাটিয়ে চলে যাওয়ার ফলে দর্শক আলোর সামনের অংশ ও পিছনের অংশ দেখতে পারলেও বস্তুটিকে দেখতে অসমর্থ হবেন। কারণ বস্তুটি থেকে কোন রকম আলো আমাদের চোখে এসে পৌছবে না। তবে আর দেরী কেন? হয়ে যাক, অদৃশ্য মানব হওয়ার যাত্রা শুরু!

Share.

Leave A Reply

÷ ten = 1