‘সাওল-খাবারের ক্যাটারিং’ একটি সামাজিক আন্দোলন

0

সাওল হার্ট সেন্টার বিডি লিমিটেডের ‘অয়েল ফ্রি কিচেন’  বাংলাদেশের স্বাস্থ্য সচেতন মানুষের সুস্বাদু খাবারের ক্যাটারিং এবং হোম সার্ভিস চালু করেছে।

রাজধানী ঢাকা অফিসার্স ক্লাবে শনিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) বেলা ১১ টায় এক উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মধ্যদিয়ে এ কার্যক্রম শুরু হয়।

ইউএস বাংলা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের অধ্যক্ষ মেজর জেনারেল (অব.) প্রফেসর বিজয় কুমার সরকারের সভাপতিত্বে এ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি জীবনবাদী কথাশিল্পী সেলিনা হোসেন এবং সাওলের প্রতিষ্ঠাতা কবি মোহন রায়হান।

বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ সচিব মো. সিরাজুল হক খান, বিশিষ্ট লেখক ও কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ, সমাজতাত্ত্বিক ও লেখক অধ্যাপক সলিমুল্লাহ খান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ও স্টেট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের জার্নালিজম, কমিউনিকেশন অ্যান্ড মিডিয়া স্টাডিজ বিভাগের উপদেষ্টা রোবায়েত ফেরদৌস এবং অন্য বিশিষ্ট জনেরা।

সাওলের ‘অয়েল ফ্রি কিচেন’ বা তেল বিহীন স্বাস্থ্যসম্মত খাবারের সার্ভিস মূলত হার্ট, লিভার, কিডনী, ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, অতিওজন, গ্যাস্ট্রিক, ক্যান্সার, বিশেষ করে তেল-চর্বি জাতীয় খাবার যাদের জন্য ঝুকিপূর্ণ, তাঁদের জন্য এ আয়োজন। এমন কি এই কিচেন গর্ভবতী মা ও ভেজিটেরিয়ানদের জন্য আলাদা আলাদা খাবারও সরবরাহ করবে।

কথাশিল্পী সেলিনা হোসেন বলেন, বেঁচে থাকার জন্য খাবার খুব প্রয়োজন। কিন্তু সে খাবারের ব্যাপারে আমাদের সচেতনতা জরুরি। সাওলের তেল বিহীন খাবার একটি উদ্যোগ নয়, বরং এটি একটি সামাজিক আন্দোলন।

সাওলের প্রতিষ্ঠাতা কবি মোহন রায়হান বলেন, আমরা রান্না করা খাবার বাজারজাত করা তেল ছাড়া ভাবতেই পারি না। অথচ প্রত্যেকটি মাছ-মাংস ও সবজির মধ্যেই তেল রয়েছে। তাহলে, আলাদা তেল প্রয়োজন কেন? মনে রাখা দরকার, কোন খাবারেই বিষ নেই, বিষ মূলত বাজারের তেলেই।

বক্তৃতায় অধ্যাপক রোবায়েত ফেরদৌস স্বামী বিবেকানন্দের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন, ‘যে ভালো রান্না করতে পারে না, সে ভালো সন্ন্যাসী হতে পারে না।’ এখন সারা দেশে যে তেল বাণিজ্য চলছে, সেখানে সাওলের তেল বিহীন খাবার একটি বিস্ময়কর ব্যাপার।

Share.

Leave A Reply

− one = one