মেহেদীকে বাঁচাতে এগিয়ে আসুন

0

বাঁচাতে হবে মেহেদীকে, ক্লাসে সহপাঠীদের মাঝে ফিরিয়ে আনতে হবে তাঁকে। এমন আর্তনাদ একজন শিক্ষকের, তাঁর ছাত্রের সমবয়সী কারো জন্য। তিনি ছেলেটির চেহারায় তাঁর প্রিয় ছাত্রদের খুঁজে পান। শুনতে পান তিনি তাঁর সন্তানের বাঁচার আর্তনাদ। তাঁকে এই মানবিক কান্না রাতে ঘুমোতে দেয় না। সারাক্ষণ শুধু ছেলেটির বাঁচার আর্তধ্বনি তাঁকে তাড়া করে বেড়ায়। স্টেট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের জার্নালিজম, কমিউনিকেশন অ্যান্ড মিডিয়া স্টাডিজ বিভাগের জ্যেষ্ঠ প্রভাষক কাজী আনিছ এমনটি লিখে যাচ্ছেন তাঁর ফেসবুক পাতায়। নিচে হুবহু পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো।

‘মেহেদী হাসান। কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী। মাত্র ছয় মাস আগে ভর্তি হয়েছে। ক্লাস করতে পারছে না। সে দিন কাটাচ্ছে হাসপাতালে। ক্যান্সার। মরণব্যাধি। ফেসবুকে তার ছবিটার দিকে তাকাতে পারছি না। মনে হচ্ছে, আমারই কোনো শিক্ষার্থী আমার দিকে তাকিয়ে আছে। আমি শিক্ষক হিসেবে অযোগ্য। আমার সামর্থ্য নেই। সে যেন আমাকে না দেখে আমি চোখ ফিরিয়ে নিই। অন্য কাজে মত্ত থাকার চেষ্টা করি।কিন্তু তার নিষ্পাপ চেহারাটা গত কয়েকদিন ধরে আমার সামনে ঘুরছে। তার চিকিৎসা চলছে ভারতে। তার সহপাঠী ও শিক্ষকেরা মিলে পাঁচ লাখ টাকা উঠিয়েছে। ওইটা শেষ। হাসপাতালে বাকি পড়েছে কয়েক লাখ টাকা। এখন সম্পূর্ণ চিকিৎসা করতে লাগবে ছয় লাখ টাকা। ক্যান্সার৷ মরণব্যাধি।

কিন্তু আশার কথা হচ্ছে, সে চিকিৎসাতে বাঁচবে। লাগবে মাত্র ছয় লাখ টাকা। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক শিক্ষার্থীদের অনুরোধ করি, আপনাদের এই ছাত্রের, এই বন্ধু বা ছোট ভাইটির পাশে দাঁড়ান। এই আবেদন যদি একটু আপনাদের বিভাগে পৌঁছে দেওয়া যায়। একটু উদ্যোগ নেওয়া যায়। একটু দায়িত্ব নেওয়া যায়। এ আবেদন যদি একটু শেয়ার করা যায়। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগেও যদি ছড়িয়ে দেওয়া যায়। আপনাদের টাকাটাই আমার দরকার। আমার হাতে না, আমরা পৌঁছে দেব তার পরিবারের কাছে এক জায়গায় জড়ো করে। মেহেদী সুস্থ হয়ে ক্লাস করছে, একটি তরুণ জীবন জীবনের আনন্দে আপনাকে আমাকে মনে করছে, আপনার হাতে দেওয়া সাহায্যে একটি জীবন জীবন্ত হয়ে উঠেছে, প্রাণোচ্ছলে… আমি নিশ্চিত, আপনার আমার জীবনে এই হবে শ্রেষ্ঠ সময়, সেরা আবেগমাখা আনন্দ… দেবেন কি, দাঁড়াবেন কি…?’

শিক্ষক কাজী আনিছ বলতে চেয়েছেন, দেশের শিক্ষার্থী মহল ও সচেতন মানুষ যদি তাঁদের মানবিক হাত মেহেদী হাসানের দিকে বাড়িয়ে দেন, তাহলে মেহেদী আবার শিক্ষাঙ্গনে যাবে, বন্ধুদের সাথে পড়বে, গল্প করবে। আবার মাতিয়ে তুলবে ক্যাম্পাস চত্বর।

Share.

Leave A Reply

98 ÷ = forty nine