বাড়ির ছাদে সবুজের সমারোহ

0

আদনান মাহমুদ।

অরণ্যকে ফিরে পেতে গাছ লাগানো অপরিহার্য, কিন্তু সে এক টুকরো জায়গা খুঁজে পাওয়া ভার আমাদের এই প্রিয় শহরে। তবে আশার আলো তখনি দেখা যায় যখন আকাশ ছুঁতে চায় সবুজপাতা। বর্তমানে শহরের বাড়িগুলোর ছাদে সবুজের সমারোহ, এমনকি পরিবেশ বাঁচাতে বা পরিবেশ এর প্রতি ভালবাসা থেকে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে।

শহরের তাপমাত্রা দিনদিন বেড়েই চলছে শহরে জনসংখ্যাও বাড়ছে। খালি জায়গায় তৈরি করতে হচ্ছে বড় বড় ইমারত। তাহলে পরিবেশ বাঁচাতে বৃক্ষের স্থান কোথায় !! মানুষ আজ সচেতন এবং সোচ্চার। তাই বাড়ির ছাদে গাছ লাগিয়ে বাগান তৈরি করে নিজে লাভবান হওয়ার পাশাপাশি রক্ষা করছে পরিবেশকে।

পরিবেশে বেড়ে যাওয়া বিষাক্ত গ্যাস থেকে জীবকুলকে একমাত্র গাছই বাঁচাতে পারে। এ বিষয়ে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. কামাল উদ্দিন আহাম্মদ বলেন, “শহর অঞ্চলে ব্যাপকভাবে ছাদ বাগান প্রকল্প সম্প্রসারণ করা সম্ভব হলে তা কার্বন ডাই অক্সাইডসহ বেশকিছু ক্ষতিকর উপাদানের মাত্রা কমিয়ে দূষণ কমাবে এবং পরিবেশের তাপমাত্রা স্বাভাবিক রাখতে সহায়তা করবে। অপরদিকে পুষ্টির চাহিদা পূরণ ও খাদ্য নিরাপত্তার ক্ষেত্রেও অভূতপূর্ব সম্ভাবনার দ্বার খুলে দেবে”।

এমনই বৃক্ষ-প্রেমীদের উৎসাহ বাড়াতে ঢাকার দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকন সম্প্রতি ঘোষণাদেন,“আমরা ঢাকা শহরকে সবুজ দেখতে চাই। আমরা গ্রিন সিটি ক্লিন সিটি করতে চাই। আমরা ঘোষণা দিয়েছিলাম। সেটারই অংশ হিসেবে আমি ঘোষণা দিয়েছি বাড়ির ছাদে বা বারান্দায় কিংবা আঙ্গিনায় বাগান করলে ১০ শতাংশ পর্যন্ত হোল্ডিং ট্যাক্স ছাড় দেয়া হবে”।

বাড়ির ছাদে বাগান করতে আগ্রহী আজকাল গৃহিণী থেকে শুরু করে নানা পেশার মানুষ।এমন দৃষ্টান্ত আজ ঘরে ঘরে প্রতিটি বাড়ির ছাদে,বারান্দায় কিংবা বাড়ির আঙ্গিনায়। এই বিষয়ে আরও আগ্রহী করতে,সহজ এবং বাগান সঠিকভাবে পরিচালনা করতে কাজ করছে বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি সংস্থা।

 

Share.

Leave A Reply

28 − twenty =