বাংলাদেশের ওষুধ সারাবিশ্বে স্বীকৃত

0

স্টেট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ এর অ্যালামনাই  এসোসিয়েশন এর সাধারণ সম্পাদক ফেনী জেলার কৃতি সন্তান মোহাম্মদ ইব্রাহিম ভূঁইয়া রাসেল বাংলাদেশের ওষুধ শিল্প – স্টেট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের অগ্রগতিসহ আরো নানান বিষয়ে মুখোমুখী হয়েছেন নতুনকিছু.কম প্রতিনিধি আমিনুল ইসলাম নাবিল এর সাথে

নতুনকিছু.কমঃ শুভসন্ধ্যা,কেমন আছেন?
মোহাম্মদ ইব্রাহিম ভূঁইয়া রাসেলঃ ভালো আছি,শুভসন্ধ্যা।

নতুনকিছু.কমঃ এলাকার জন্য কেমন টান অনুভব করেন?
মোহাম্মদ ইব্রাহিম ভূঁইয়া রাসেলঃ ফেনী জেলার সোনাগাজী উপজেলার ৯ নবাবপুর ইউনিয়নে আমার জন্ম। শৈশব কেটেছে ফেনীতেই। এলাকা আর এলাকার মানুষের প্রতি আত্মিক টান কাজ করে সবসময়, সময় পেলেই ছুটে যাই নিজ এলাকায় মানুষের সেবা করার জন্য।

নতুনকিছু.কমঃ ছোটবেলায় কী হওয়ার স্বপ্ন দেখতেন?
মোহাম্মদ ইব্রাহিম ভূঁইয়া রাসেলঃ আমিরাবাদ বি, সি, লাহা স্কুল এন্ড কলেজ-ফেনী ও ইস্পাহানী পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ-কুমিল্লা থেকে যথাক্রমে আমার এসএসসি ও এইচএসসি। বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী হওয়ার ফলে ইচ্ছা ছিল ডাক্তার – ইঞ্জিনিয়ার হবো। ডিফেন্সেও ট্রাই করেছিলাম। পরবর্তী সময়ে বেছে নিই স্টেট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের ফার্মেসি বিভাগ।

নতুনকিছু.কমঃ স্টেট ইউনিভার্সিটি কেনো বেছে নিলেন?
মোহাম্মদ ইব্রাহিম ভূঁইয়া  রাসেলঃ স্টেট ইউনিভার্সিটি কেনো নয়! এখানকার শিক্ষকগণ দেশসেরা-উন্নতমানের ল্যাব ফ্যাসিলিটি-এছাড়াও এখান থেকে গ্রাজুয়েটস হয়ে কেউ বেকার থাকে না। চাকুরির বাজারে স্টেটের বেশ সুনাম আছে। স্টেট একজন ছাত্রকে শুধুমাত্র চাকুরি পাওয়ার জন্য তৈরি করে না, একজন আদর্শ মানুষ হিসেবে তৈরি করে।

নতুনকিছু.কমঃ গ্রাজুয়েশনের যাত্রা কেমন ছিল?
মোহাম্মদ ইব্রাহিম ভূঁইয়া  রাসেলঃ ভালো রেজাল্টের জন্য স্কলারশিপ পেয়েছিলাম। ১ম ফার্মা উইক এর উদ্যোগতা ছিলাম আমি, রবিউল ভাই,  সহ আরো কয়েকজন। এছাড়াও দায়িত্ব পালন করছি ফার্মেসি অ্যালামনাই এসোসিয়েশন অব এসইউবি ও  স্টেট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ অ্যালামনাই এসোসিয়েশন (সুবা) এর সাধারণ সম্পাদক হিসেবে। কর্মজীবনেও নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করছি ফার্মাসিউটিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিতে একজন ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফার্মাসিস্ট হিসেবে।

নতুনকিছু.কমঃ ফার্মাসিস্ট পেশা কেমন উপভোগ করেন?
মোহাম্মদ ইব্রাহিম ভূঁইয়া রাসেলঃ বাংলাদেশের ওষুধ সারাবিশ্বে স্বীকৃত। জিডিপি’তেও বিশেষ ভূমিকা রাখে ওষুধ শিল্প। পেশাটাকে ভালোবেসে ফেলেছি। রেনেটা লিমিটেড – বেক্সিমকো লিমিটেড এ কর্মজীবন অতিবাহিত করেছি আর বর্তমানে আছি ভেরিতাস ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড এ খুব শীঘ্রই একমি ল্যাবরেটরিজ লিমিটেড এ যুক্ত হতে যাচ্ছি।।

নতুনকিছু.কমঃ বাংলাদেশের ওষুধ শিল্পের সংকট ও সম্ভাবনা নিয়ে কিছু বলুন।
মোহাম্মদ ইব্রাহিম ভূঁইয়া রাসেলঃ ফার্মাসিউটিক্যালস ইন্ডাস্ট্রি বিশাল এক শিল্প।আমাদের ওষুধ United State Food And Drug Administration(US-FDA) – United kingdom Healthcare Products Regulatory Agency(UK-MHRA), Therapeutic Goods Administration(TGA) কর্তৃক স্বীকৃতিপ্রাপ্ত। তবে কতিপয় অসাধু ব্যবসায়ী নকল ওষুধ তৈরি করছে আর খুচরা পর্যায়ের বিক্রেতাগণ ওষুধ সম্পর্কে যথাযথ জ্ঞান রাখে না। অধিকাংশ সময় ওষুধকে সঠিক তাপমাত্রায় ফ্রিজিং না করার ফলে ওষুধের গুনগত মান কমে যায় এতে ব্র্যান্ডিং ইমেজ নষ্ট হয় কোম্পানি গুলোর। এগুলো দেখার জন্য অবশ্য  Directorate General Drug of Administration(DGDA) আছে তারা শক্ত হাতে এগুলো মোকাবেলা করে থাকে। স্যাম্পল ওষুধ নিয়ে কিছু বলবো প্রেস্ক্রিপশনে ঔষুধের ব্র্যান্ডের নাম না লিখে জেনেরিক নাম লেখা চালু করতে হবে এতে করে স্যাম্পল ওষুধ বিক্রি সহ এ কেন্দ্রিক সমস্যা কমবে। তবে সাধারণ মানুষের ও আরো সচেতন হওয়া জরুরী।

নতুনকিছু.কমঃ স্টেট ইউনিভার্সিটি কে মূল্যায়ন করবেন কীভাবে?
মোহাম্মদ ইব্রাহিম ভূঁইয়া রাসেলঃ প্রতিটি বিভাগের শিক্ষকরাই এখানকার যথেষ্ট মানসম্পন্ন। নীতিনির্ধারক পর্যায়ের ব্যক্তিবর্গগণ ও বেশ দক্ষ। স্থায়ী ক্যাম্পাসের কাজ প্রায় সম্পন্ন। সবার নিজ নিজ স্থান থেকে আসলে বিশ্ববিদ্যালয়কে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে।

নতুনকিছু.কমঃ শেষ প্রশ্ন,অ্যালামনাই এসোসিয়েশন নিয়ে কী ভাবছেন?
মোহাম্মদ ইব্রাহিম ভূঁইয়া  রাসেলঃ বিশ্ববিদ্যালয়ের মান নির্ভর করে বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যালামনিদের উপর। আমরা স্টেট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ অ্যালামনাই এসোসিয়েশন(সুবা) চাইনা একজন গ্রাজুয়েশন সম্পন করা শিক্ষার্থীও যেনো হারিয়ে না যায়, এ লক্ষ্যে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

নতুনকিছু.কমঃ আপনাকে নতুনকিছু.কম এর পক্ষ হতে অসংখ্য ধন্যবাদ।
মোহাম্মদ ইব্রাহিম ভূঁইয়া রাসেলঃ আপনাকে ও নতুনকিছু.কম কে’ও অসংখ্য ধন্যবাদ জানাই। সব সময় এসইউবি এর মঙ্গল কামনা করি এবং এসইউবি’র সাথে আছি ও সব সময় থাকব।

Share.

Leave A Reply

sixty four − sixty =