ফুটবলে লাল কার্ড ও হলুদ কার্ডের আদিকথা

0

চলছে বিশ্বকাপ ফুটবল। চারিদিকে হই হই রই রই কাণ্ড। প্রিয় দলের খেলা অনেক উৎসাহ নিয়ে দেখেন সব বয়সী মানুষ। প্রিয় খেলোয়ার যখন প্রতিপক্ষ দলের গোল পোস্টের দিকে ছুটে চলেন গোল দেবার জন্য, আর তখনি যদি প্রতিপক্ষ দলের কোন খেলোয়ার দ্বারা আঘাতপ্রাপ্ত হন, ঠিক সেই সময়ে রেফারি প্রতিপক্ষ দলের সেই খেলোয়ারকে হলুদ কার্ড দেখিয়ে সাবধান করবেন অথবা লাল কার্ড দেখিয়ে মাঠ ছেড়ে বের হয়ে যেতে বলবেন।

যারা ফুটবল খেলা দেখেন ও বোঝেন, তারা প্রত্যেকেই জানেন হলুদ ও লাল কার্ডের অর্থ। কিন্তু কখনও কি ভেবে দেখেছি কোথা থেকে এসেছে এই হলুদ কার্ড বা লাল কার্ড প্রথা? যদি বলি ট্রাফিক সিগন্যালের লাল, হলুদ বাতি থেকেই এর উৎপত্তি, তবে তা এক বিন্দু মিথ্যে হবেনা।

হলুদ ও লাল কার্ডের প্রবর্তক কেন অস্টিন ১৯৩৬ সালে রেফারি হিসাবে খেলা পরিচালনা শুরু করেন। ১৯৬৬ সালে বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা বনাম ইংল্যান্ড এর খেলায় এক ইংল্যান্ড খেলোয়ারকে মারাত্মক আক্রমণের ফলে আর্জেন্টিনার তৎকালীন অধিনায়ক রাতিনকে মাঠ ছেড়ে বের হয়ে যেতে বলেন, সেই ম্যাচের রেফারি কেন অস্টিন। কিন্তু রাতিন ইংরেজি ভাষা বোঝেননা বলে বাধলো বিপত্তি। পরে রাতিনকে মাঠ থেকে বের করে আনতে পারলেও এই সমস্যার কথা মাথা থেকে যায়নি কেন অস্টিনের।

একদিন গাড়ি চালিয়ে ট্রাফিক সিগন্যালে আটকা পড়লে চোখ যায় লাইট পোস্টের লাল হলুদ বাতির দিকে। তখনি ভেবে ফেলেন এই রঙ গুলো নিয়েই এই সমস্যার সমাধান করবেন। বাড়িতে গিয়ে তার স্ত্রী হিলডার সংগে আলাপ করলে হিলডা আরও বুদ্ধিমত্তা খাঁটিয়ে ব্যাপারটিকে দুটি ছোট হলুদ ও লাল কাগজে নিয়ে আসেন। ব্যস! হয়ে গেল সমস্যার সমাধান। সেই থেকেই ১৯৭০ সালের বিশ্বকাপ আসর থেকে ব্যবহৃত হয়ে আসছে এই কার্ড গুলো।

Share.

Leave A Reply

× five = fifty