‘ক্লাব ছিলো আমার কাছে নেশার মত’

0

আমিনুল ইসলাম নাবিল।। 

যে কাজ অন্তরে এনে দেয় প্রশান্তি সেই কাজেই মনোনিবেশ করা উচিত। তাইতো স্কুল-কলেজ পর্যায়ে সাইন্স এর স্টুডেন্ট এবং  বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে কম্পিউটার সাইন্স থেকে পড়াশুনা করেও পেশা জীবন হিসেবে তিনি বেছে নিয়েছেন সিনেমা তৈরি। যিনি একাধারে বিতার্কিক, লেখক, চলচ্চিত্র নির্মাতা, সাংবাদিক জুয়েইরিযাহ মউ

সাংস্কৃতিক এই অগ্রযাত্রায় মউ এর অনুপ্রেরণার মূলে তার পরিবার বিশেষ করে মা-বাবা। বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের স্মৃতিচারণ করতে যেয়ে তিনি স্মরণ করেন রোবায়েত ফেরদৌস স্যার, মামুন  স্যার, জিতু ম্যাম ও সহকর্মী সোহানের কথা। উল্লেখ্য বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে মউ ছিলেন ডিবেট ক্লাব, ড্রামা ক্লাব ও সিএসই মিডিয়া ক্লাবের সভাপতি। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিতর্ক প্রতিযোগিতা, শরৎ উৎসব, বসন্ত বরণ সহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, ক্লাব এসব ছিল মউ এর কাছে নেশার মত।

ক্লাব করা প্রসংগে মউ বলেন, ‘ভালো শিক্ষার্থী হওয়ার পাশাপাশি আত্মবিশ্বাস জীবনে চলার পথে খুব গুরুত্বপূর্ণ আর আত্মবিশ্বাসের ভীতটিই গড়ে দেয় ক্লাব’। বর্তমানে যারা ক্লাব করছে তাদের উদ্দ্যেশ্যে মউ বলেন, ছেলেমেয়েদের একতাবদ্ধ থাকতে হবে। একেকজন একেক ভাবধারার  হলেও ক্লাবকে টিকিয়ে রাখতে হলে ক্লাবের স্বার্থে থাকতে হবে আপসহীন। ব্যস্ততার জন্য ক্লাবের অনেক প্রগ্রামে উপস্থিত হতে না পারলেও মউ জানান, আমার কাছে ক্লাব একটি ভরসার জায়গা। সম্প্রতি তিনি সম্পন্ন করেছেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র টেলিভিশন ইন্সটিটিউট হতে ডিপ্লোমা ডিগ্রি। তার উল্ল্যেখযোগ্য নির্মিত শর্টফিল্ম গুলো হচ্ছে, গ্রাফিতি, ভয়, রদ্রাক্ষকথা। এছাড়াও তাঁর প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ তাসেরা বুকমার্ক মিতাক্ষরা প্রকাশনী থেকে বের হয়েছে। গ্রাফিতি চলচ্চিত্রটি দেশে ও দেশের বাহিরে ভারত ও ইটালির ফিল্ম ফেস্টিভাল এ প্রদর্শিত হয়। অবসরে পছন্দ করেন ঘু্রতে, ছবি তুলতে আর বই পড়তে। শর্টফিল্মের মাধ্যমে মউ তুলে আনেন মানুষের মনের কথা যেন দর্শক সহজে অনুধাবন করতে পারে। মউ এর মতে, ‘একজন আরেকজনের ক্ষতি না করলে পৃথিবীটা হবে আরো সুন্দর’।

জুয়েইরিযাহ মউ সম্পর্কে স্টেট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ ডিবেটিং সোসাইটি এর সাবেক প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক এইচ এম নজরুল ইসলাম সুজন বলেন, ‘দীর্ঘদিন একসাথে কাজ করা হাসি আনন্দ ও আড্ডার মাধ্যমে আপুর কাছাকাছি যাওয়ার সুযোগ হয়েছিল। আমি তাঁকে একজন সৃষ্টিশীল ও অন্যায়ের সাথে আপসহীন মানুষ হিসেবে পেয়েছি’।

Share.

Leave A Reply

2 × four =