‘এসইউবি’র বই ঘর’ একটি জ্ঞান-সমুদ্র

0

আহসান হাবীব-

ঘরজুড়ে সকালের মিষ্টি রোদ। ঘরের দেয়াল ঘেষে বইয়ের তাক। মাঝখানে বসানো লম্বা টেবিলের সারি সারি চেয়ারে বসে আছে কয়েক জন পাঠক। কেউ বই আবার কেউ দৈনিক পত্রিকা পড়ছেন। ৭ বছর ধরে এভাবেই পাঠকদের নিমগ্ন করে রেখেছে লাইব্রেরিটি।

ফেব্রুয়ারি ২০১২ সালে স্টেট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ এসইউবি’র ট্রাস্টি বোর্ডের প্রেসিডেন্ট ডা. এ এম শামীম রাজধানীর ধানমণ্ডি কলাবাগানে অবস্থিত এসইঊবি’র ২য় ক্যাম্পাস  বিজয় এর লাইব্রেরিটি উদ্বোধন করেন। এই ১০তলা  ভবনটির ৫ম তলায় লাইব্রেরিটি অবস্থিত।

এই লাইব্রেরিতে রয়েছে এসইউবি’র বিজয় ক্যাম্পাসের ৪টি বিভাগের এর দেশি বিদেশি বই বাদেও মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক বই, বাংলা সাহিত্যসহ বাংলা, ইংরেজি মিলে প্রতিদিন ১০টি করে দৈনিক পত্রিকা। সপ্তাহে ৭দিন সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত লাইব্রেরিটি খোলা থাকে। মনোমুগ্ধকর পরিবেশের লাইব্রেরিটি যে কোন পাঠকের মন জয় করতে পারে অনায়াসে ।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে এসইউবি’র জার্নালিজম, কমিউনিকেশন অ্যান্ড মিডিয়া স্টাডিজ বিভাগের জ্যেষ্ঠ প্রভাষক কাজী আনিছ বলেন, আমাদের প্রতিষ্ঠানের এই লাইব্রেরিটি ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য অনেক সহায়ক। তাঁদের জ্ঞানের পরিধি বৃদ্ধির জন্য সবাইকে লাইব্রেরি মুখী হওয়া জরুরি। আর ছাত্র-ছাত্রীরা বলেন, তাঁরা সত্যিই সৌভাগ্যবান এ রকম একটি লাইব্রেরি পেয়ে। তাঁরা এখানে প্রতিদিনই আসি জ্ঞান বিকাশের জন্য।

লাইব্রেরিটির বিশেষ দিক হলো কার্ড তৈরির মাধ্যমে যে কোন ধরণের বই পাঠেকরা বাড়িতে নিয়ে পড়তে পারেন । কিন্ত বইটি ৭দিন অথবা ১৫ দিন পর পর পুনরায় ইস্যু করতে হয়। অন্যথায় দিন প্রতি ৫ টাকা করে জরিমানা গুনতে হয়। আবার যদি কোন পাঠক কোন বই হারিয়ে ফেলে, তাহলে পুনরায় নতুন বই অথবা তার সমপরিমান টাকা জরিমানা দিতে হয়। শিক্ষার্থীরা মনে করে, তাঁরা এই বহুমুখী গ্রন্থাগারটি পেয়ে ধন্য।

 

লেখক: শিক্ষার্থী, জার্নালিজম, কমিউনিকেশন অ্যান্ড মিডিয়া স্টাডিজ বিভাগ, স্টেট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ।

Share.

Leave A Reply

six × = thirty