একটি স্কুলকে ঘিরে এলাকাবাসীর স্বপ্ন…

0

আমিনুল হক মুন্না

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার তিতাস নদীর পূর্বাঞ্চলে অবস্থিত ‘কাশিনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়’ আদর্শ স্কুল নামে পরিচিত। আগরতলা মামলা’র ঐতিহাসিক সীমানা বরাবর কাশিনগর এলাকাটি অবস্থিত। স্থানটির নামানুসারেই স্কুলটির নাম করণকরা হয়েছে। 

বিদ্যালয়টি স্থাপিত হয় ১৯৬৯ সালে এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের এক ঘোষণায় জাতীয়করণ করা হয় ১৯৭৩ সালে।স্কুলটির আয়তন ৩৩ শতাংশ। কাশিনগরের কৃতিসন্তান মরহুম আবুল বাসার স্কুলটির ভূমিদান করেন। বর্তমানে স্কুলটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন তার’ই ছেলে মো: হাবিবুল হক।

স্কুলটির বর্তমান শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৫২০ জন। শিক্ষকের সংখা ৮ জন। এদের মধ্যে একজন প্রধান শিক্ষক, ৭ জন সহকারী শিক্ষক রয়েছেন। বিদ্যালয়টির ফলাফল শতভাগ। সরকারের ভিশন ২১ কে সামনে রেখে ডিজিটাল শিক্ষায় শিক্ষিত করার লক্ষে কাজ করে যাচ্ছেন শিক্ষক মণ্ডলীসহ স্থানীয় লোকজন।

স্কুলটির সাভাপতি হাবিবুল হক জানিয়েছেন, বিদ্যালয়টির সার্বিক দিক দিয়ে গত ২০১৫ সালের আগে যা উন্নতি হয়েছে, তার দ্বিগুণ উন্নতি হয়েছে ২০১৫ থেকে ২০১৮ সালের মধ্যে। এ সময়ে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন জনাব মজিবুর রহমান।

মুজিবুর রহমান বলেন, আমি চাই এই মনোরম পরিবেশে অবস্থিত স্কুলটি ৮ম শ্রেণি পর্যন্ত করা হোক। ফলে এলাকাটি শিক্ষার আলোয় আলোকিত হবে এবং নারী শিক্ষার প্রসার ঘটবে, বাল্যবিবাহ কমবে, দেশ ও জাতির কল্যাণে স্কুলটি কাজ করবে।

এলাকাবাসী জানিয়েছে, এই বিদ্যালয়টি থেকে হাই স্কুলের দূরত্ব ৪ কিলোমিটার, অধিক দূরত্বের কারণে শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে অনেক ছেলে মেয়ে। ফলে, দেখা দিচ্ছে বিভিন্ন সামাজিক কুসংস্কার ও বাল্যবিবাহ’র প্রবণতা।
একটি উচ্চ মাধ্যমিক স্কুল স্থাপন করা আবশ্যক বলে জানিয়েছে কাশিনগরের স্থানীয় সচেতন লোকজন।

Share.

Leave A Reply

48 ÷ = eight