উপন্যাস থেকে সিনেমা ‘ব্রাম স্টোকার ড্রাকুলা’

0

সাদমান শাওন

সুপরিচিত গডফাদার সিনেমার পরিচলকের নির্মিত সিনেমা ড্রাকুলা যেটি ১৯৯২ সালে রিলিজ পায়। মুলত এটি রোমান্টিক হরর ফ্যান্টাসি সিনেমা।গ্যারি ওল্ডম্যান ড্রাকুলার চরিত্রে অভিনয় করেন। এবং কিয়ানু রিভস(জোনাথান হার্কার) ড্রাকুলা এর আইনজীবীর ভূমিকায় অভিনয় করেন।

সিনেমার শুরুতেই দেখা যায়, ড্রাকুলার সাথে দেখা করার জন্য জোনাথান হার্কার(কিয়ানু রিভস) ট্রানসিলভেনিয়ায় তার ক্যাসেলে যায় এবং ড্রাকুলার সাথে দেখা করে। দুজনের আলাপচারিতার মাঝে মাঝপথে যখন ড্রাকুলা জোনাথান হার্কারের(কিয়ানু রিভস) ফিয়ান্সে মিনা(উইনোনা রাইডার) এর ছবিটা দেখে তখন সে অবাক হয়ে যায় কারন বহু বছর আগে ড্রাকুলার ওয়াইফ(এলিজাবেথা) ছিল , ড্রাকুলার মারা যাওয়ার গুজব শুনে আত্মহত্যা করেছিল এবং তার চেহারা পুরোপুরি জোনাথান হার্কারের ফিয়ান্সে মিনার সাথে পুরোপুরি মিলে যায়। আর তাই ড্রাকুলা ভাবে মিনা রুপেই এলিজাবেথার এর পুনর্জন্ম হয়েছে।

ছবিতে, ট্রানসিলভেনিয়ায় যাওয়ার পথে কিয়ানু রিভস(জোনাথান হার্কার)

এর পর তখন সে জোনাথান হার্কারকে তার মগজে আঁটকে ফেলার চেষ্টা করে এবং ড্রাকুলা লন্ডনে চলে যায় এবং মিনাকে খুজতে থাকে এবং তার তখন একটাই লক্ষ্য যে ভাবেই হোক তার মিনাকে চাই। যারা ব্রাম স্টোকার ড্রাকুলা উপন্যাসটি পড়েছেন তাদের কাছে বইয়ের পাতা থেকে এসেছে মন্তব্য না করলেও অন্ততপক্ষে কিছুটা হলেও সেই ভয়ংকর, ট্রানসিলভেনিয়ার ক্যাসেল এর পথ,ভূতুড়ে পরিবেশ কিছুটা হলেও দেখে অনুভব করবেন।

এরপর ঘটনার জন্য সিনেমাটি যারা দেখেননি দেখে ফেলুন। কেননা ভাল সিনেমার প্রতি আগ্রহ তৈরি করাই লিখার উদ্দেশ্য। সিনেমাটির ছোটদের না দেখাই ভাল।

গ্যারি ওল্ডম্যান এই মুভির প্রধান ছিল। তার ড্রাকুলার অভিনয় যেমন অসাধারণ তেমনি গল্পও বটে।
বিশ্ববিখ্যাত পিশাচ কাহিনী ড্রাকুলা লিখে বিখ্যাত হন আইরিশ লেখক ব্রাম স্টোকার।১৮৯৭ সালে বইটা পাবলিশ হয় যা এখনও বিশ্বের হরর কাহিনীর ইতিহাসে অন্যনতম। এবং এই বই থেকেই ড্রাকুলা সিনেমা তৈরি হয়।

মুভি: Bram Stoker’s Dracula
রিলিজ: ১৯৯২
ডিরেক্টর: ফ্রান্সিস ফোর্ড কোপোলা
টাইপ: ফ্যান্টাসি,হরর,রোমান্স
অভিনয়ে: গ্যারি ওল্ডম্যান,উইনোনা রাইডার,কিয়ানু রিভস,স্যার অ্যান্থনি হপকিন্স,মনিকা বেলুচ্চি।
আইএমডিবি রেটিং: ৭.৫

Share.

Leave A Reply

× four = twenty