আমারও বাঁচার অধিকার আছে, আমিও বাঁচতে চাই

0

আমি নারী, তাই আমি গর্বিত।
কারণ, আমি একটি ছোট ছেলের মা। কিশোর ছেলের বন্ধু, প্রাপ্ত বয়স্কের বউ। একজন পৌঢ় পুত্রবধূ, আর একজন বয়ষ্ক লোকের সেবাদান কারী।
আমি নারী, জগতের অর্ধেক সৃষ্টির গৌরবের দাবীদার!

আমি নারী, কারণ আমি দাত কামড়ে কষ্ট সহ্য করার যোগ্যতা রাখি।
আমিই নারী, কারণ আমি মনে না নিলেও মেনে নিতে বাধ্য হতে পারি।
আমি নারী, তাই কখনো আমি চিরোদুঃখিনী মা! আলতা পায়ে কলশি কাখে নদীর ঘাটের সেই বধূ।

আলতা পায়ের সেই দুড়ন্ত কিশোরী আমার শৈশব!
আমি নারী, যেখানে আমি সমাজের অর্ধাঙ্গী।

তবুও আমি কাঁদি, কারণ আমি যৌতুকের দায়ে নির্যাতিত হই। পথে-ঘাটে যেখানে আমি আজকাল অহরহ ধর্ষিত। আমাকে কাঁদতে হয়! যেখানে আমার মৃত্যুর বিচার হয় কয়েকটা স্ট্যাটাস কিংবা ইভেন্ট দিয়ে।
আমি কি না কেঁদে পারি? আমি যে নারী!

যেখানে আমি প্রতিনিয়ত লাঞ্চিত সেই সমাজেও আমি চিৎকার করে গলা ফাটিয়ে নারীত্ববাদের বৃথা জয়গানে মাতি।
কারণ আমি নারী, কোমল মতী মা! কোমলতা আমার ভূষণ, আমার হৃদয় মাতৃত্বে গড়া। আমার ও ইচ্ছা জাগে প্রকৃত অর্ধাঙ্গী হয়ে বাঁচতে। সন্মান পেতে, সাহায্য পেতে কিংবা করতে। একসাথে সামনে এগিয়ে যেতে আমিও চাই।

আমায় সন্মান করো, কারণ আমি তোমার মা। আমায় সাহায্য করো, কারণ আমি তোমার বোন, তোমার বন্ধু। আমায় ভালোবাস কারণ আমিই তোমার বাম পাজরের সেই হাড়।
যেখানে আমিই তোমার জীবনের সবখানেই জড়িয়ে আছি, সেখানে আমি কেন লাঞ্চিত হচ্ছি তোমার দ্বারা! যেখানে আমাকে ছাড়া তুমি অসহায় সেখানেও কেন আমি তোমার দ্বারা উত্যক্ত হই?
জবাব টা দিতে পারবে কি, হে পুরুষ?

তবুও আমি নারী, সর্বোপরী আমি মানুষ। আমারো বাঁচার অধিকার আছে। আমিও বাঁচতে চাই, ভালোভাবেই বাঁচতে চাই। অত্যাচারিত না হয়ে স্বাধীণ ভাবে বাঁচতে চাই। একই সাথে সামনে এগোতে চাই।

লেখক: শিক্ষার্থী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

Share.

Leave A Reply

seventy four ÷ = 37