অতিরিক্ত কম ও বেশি ওজনে আয়ু কমে!

0

বাড়তি মেদ কিংবা স্বাভাবিকের চাইতে কম ওজনের কারণে চার বছর আয়ু কমে যেতে পারে। অতিরিক্ত মোটা হওয়া যেমন ভালো নয়, অতিরিক্ত শুকিয়ে যাওয়াও কিন্তু খারাপ। ল্যানসেট জার্নালের একটি গবেষণায় এসব তথ্য উঠে আসে।

গবেষণায় দেখা যায় ৪০ বছর বয়সের পরে যাদের বিএমআই (বডি মাস ইনডেক্স) স্বাভাবিক, তাদের অসুস্থ হয়ে মৃত্যুবরণের হার কম। যাদের বিএমআই অনেক বেশী এবং যাদের একেবারে কম, তাদের জীবনকাল অন্যদের তুলনায় কম। গবেষণাটি প্রায় দুই লাখ মানুষের ওপর করা হয়েছে। তারা ছিলেন যুক্তরাজ্যের কিছু চিকিৎসকের অধীনে নিবন্ধন করা রোগী।

শরীরের আদর্শ ওজন নির্ণয়ের একটি গাণিতিক পদ্ধতি হচ্ছে বিএমআই। বিএমআই হিসাব করা হয় ওজন এবং উচ্চতার উপরে নির্ভর করে (ওজন উচ্চতার স্কয়ার)। ওজন ‘কেজি’ এবং উচ্চতা ‘মিটারে’ হিসাব করতে হয়। ১৮.৫ থেকে ২৫ পর্যন্ত স্বাভাবিক বিএমাই ধরা হয়। কেউ মোটা বা শুকনা কিনা তা বোঝার সবচেয়ে সহজ উপায় হলো বিএমআই হিসেব করা।

অংশগ্রহণকারীদের মৃত্যু কীভাবে হয়েছে সেই তথ্য নেয়া হয়েছে। ক্যানসার, হার্টের সমস্যা, শ্বাসপ্রশ্বাসের সমস্যাসহ আরও নানা রোগে মৃত্যু হয়েছে অনেকের। ল্যানসেট ডায়াবেটিস এন্ড এনডোক্রিনোলজিতে প্রকাশিত এই গবেষণায় জানানো হয়েছে যে বাড়তি ওজনের কারণে পুরুষের ৪.২ বছর এবং নারীর ৩.৫ বছর আয়ু কমে যেতে পারে অন্যদের তুলনায়। আবার বিএমআই ২১ এর নিচে থাকার কারণে পুরুষের ৪.৩ বছর এবং নারীর ৪.৫ বছর আয়ু কমে যেতে পারে। গবেষণাটিতে এসব তথ্য উঠে আসে।

যারা বাড়তি মেদ নিয়ে ঝামেলায় আছেন তাদেরকে গবেষকরা কম ক্যালরির স্যুপ খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। আর যাদের বিএমআই স্বাভাবিকের চাইতে কম, তাদেরকে পুষ্টিকর খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

সূত্রঃ বিবিসি ওয়ার্ল্ড

Share.

Leave A Reply

× two = ten